হাইলাইট
।।ভোটের জন্য বহুরূপী সাজলেও না জানেন রবীন্দ্রনাথ, না জানেন মহাত্মা গান্ধি।।কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী অবস্থানকে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর।।চরম অটোক্র্যাট মোদি ৮০000 হাজার টাকার ব্যাঙের ছাতা খান।।সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চরম বিতর্কিত হিন্দু ধর্মের বিজ্ঞাপন।।এই কদর্য রিমেক ভাজপাকেই মানায়।।প্রধানমন্ত্রীর পদ ব্যবহার করে বিজেপির প্রচার করছেন মো।।ভাজপা প্রার্থী হিরণের ডক্টরেট ডিগ্রি জাল।।বিজেপির দিকে ভোট সুইং হবে না, মোদিকে চ্যালেঞ্জ, দম থাকলে আমার সঙ্গে মুখোমুখি বিতর্ক সভায় বসুন।।থেকে যাওনা গো।।মমতার তরুণ তুর্কি দেবাংশু নীল ঘোড়ায়।।সর্বত্র ভাজপা হারছে, না হলে বলে জগন্নাথদেবও মোদির ভক্ত।।বিজেপির একটা বুথে মদ খাওয়ার খরচ ৫০০০ টাকা।।৬ মাসের মধ্যে শুরু হবে ঘাটাল মাস্টারপ্ল্যানের কাজ।।পুরুলিয়ায় মোদির মঞ্চে ভারত সেবাশ্রমের সাধু।।১ মের বদলে ১ এপ্রিল থেকে ডিএ দেওয়ার সিদ্ধান্ত
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

ভোটের জন্য বহুরূপী সাজলেও না জানেন রবীন্দ্রনাথ, না জানেন মহাত্মা গান্ধি

ভোটের শেষ লগ্নে মোদিবাবুর মত, গান্ধি সিনেমা তোলা না হলে সারা বিশ্ব গান্ধির নামও জানত না ৩৬৫ দিন। ১০ অগাস্ট ২০০৭ : দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষের

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী অবস্থানকে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর

রাজ্যসঙ্গীত গাইতে গিয়ে পদে পদে হোচট খেলেন মোদী ৩৬৫দিন। কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী রায়কে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর। মঙ্গলবার সপ্তম দফার নির্বাচনের প্রচারে বাংলায় এসে তৃণমূল বিরোধী

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

চরম অটোক্র্যাট মোদি ৮০000 হাজার টাকার ব্যাঙের ছাতা খান

মোদির স্বৈরতান্ত্রিকত আচরণের বিরুদ্ধে মমতার গর্জন ৩৬৫ দিন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লাঞ্চের খরচ প্রায় চার লক্ষ টাকা। উনি যে ব্যাঙের ছাতা বা মাশরুম খান সেটি

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চরম বিতর্কিত হিন্দু ধর্মের বিজ্ঞাপন

এবার ঘোমটার আড়ালে ভাজপার খ্যামটা নাচ,নিউজ মিডিয়া ছেড়ে সোশাল মিডিয়ায় বিপুল টাকা ঢেলে ৩৬৫ দিন। মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়! তার জেরে জাতীয় নির্বাচন কমিশন

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

এই কদর্য রিমেক ভাজপাকেই মানায়

গৌতম ঘোষের ধিক্কার গৌতম ঘোষ। ৩৬৫ দিন। সত্যজিৎ রায়ের হীরক রাজার দেশে ছবিকে ,তার সংলাপকে, সেটকে এবং চরিত্রদের বিকৃত করে যে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন বিজেপি নির্মাণ

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

প্রধানমন্ত্রীর পদ ব্যবহার করে বিজেপির প্রচার করছেন মো

মমতার গর্জন, বিজ্ঞাপনেও লিখছে প্রধানমন্ত্রীর রোড শো ৩৬৫ দিন। আগামীকাল মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির রোড শো উত্তর কলকাতায়। নির্বাচন চলাকালীন প্রধানমন্ত্রীর ব্যাচ লাগিয়ে এই রোড

Read More »
Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print

২৬০০০ শিক্ষক ছাঁটাই রাজ্য সুপ্রিম কোর্টে।।

এটা তো মগের মুলুক নয়

 

একতরফা বিচারে ছাঁটাই ২৬ হাজার চাকরি, শ্রম দানের পরেও বেতন ফেরতের নির্দেশ কেন? বিচারপতি দেবাংশু বসাকের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের রাজ্যের

৩৬৫ দিন। নয়াদিল্লি। বিনা দোষে শাস্তি দেওয়া হয়েছে বাংলার হাজার হাজার চাকুরীরত শিক্ষক এবং অশিক্ষক কর্মচারীকে। তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাদের বক্তব্য না শুনে একতরফা রায় দেওয়া হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের পক্ষ থেকে। ২০১৬ সালের এসএসসি পরীক্ষায় পাশ করে চাকরি পাওয়ার পরে এতদিন ধরে স্কুলে শ্রম দান করার পরেও বেতন ফেরতের নির্দেশ কেন দিল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিদের দেবাংশু বসাকের ডিভিশন বেঞ্চ? প্রায় ২৬ হাজার চাকুরীরত শিক্ষক এবং অশিক্ষক কর্মীর চাকরি ছাটাই করা হলেও কোন তদন্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নিলেন কলকাতা হাইকোর্টের দুই বিচারপতি? এমন প্রশ্ন তুলে এবারে সুপ্রিমকোর্টে স্পেশাল লিভ পিটিশন দায়ের করল রাজ্য সরকার। 

সেই সঙ্গে হঠাৎ করে বিপুল সংখ্যক অর্থাৎ প্রায় ২৬ হাজার শিক্ষক এবং শিক্ষা কর্মীর চাকরি বাতিল হওয়ার শিক্ষা ব্যবস্থা কার্যত ভেঙে পড়বে বলে উল্লেখ করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে জমা দেওয়া আবেদনে। 

কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাকের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ গত সোমবার ২০১৬ সালের এস এস সি দুর্নীতি মামলায় ২৫ হাজার ৭৫৩ জন চাকুরিরতর ছাটাই করার নির্দেশ দেন। এ রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে গঠিত হওয়া কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাক ও বিচারপতি শাব্বর রশিদির নেতৃত্বে গড়া ডিভিশন বেঞ্চ। নির্দেশে জানিয়ে দেন, জালিয়াতি করে চাকরি পাওয়া ২৫ হাজার ৭৫৩ জনের চাকরি অবৈধ। পাশাপাশি আরও নির্দেশ দেন, দ্রুত চাকরির প্রক্রিয়া শুরু করার। ওই নির্দেশ অনুযায়ী, যাঁরা চাকরি পেয়েছিলেন, তাঁদের ১২ শতাংশ সুদসহ আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে ওই টাকা ফেরত দিতে হবে। এ নিয়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকেও নির্দেশ দেন।

এই দুই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই সুপ্রিম কোর্টে স্পেশাল পিটিশন দায়ের করল রাজ্য সরকার। গত সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাকের ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় ঘোষণার পর এই মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ্য জনসভা থেকে ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, এই রায় বেআইনি আমরা এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যাব। আমরা লড়ে যাব। লড়াই করব। যাঁদের কথা বলা হয়েছে অর্থাৎ চাকরি বাতিল করা হল তাঁরা হতাশ হবেন না। চিন্তা করবেন না। কেউ জীবনের ঝুঁকি নেবেন না। আমরা আপনাদের পাশে রয়েছি। যতদূর লড়াই করার লড়াই করব। রায় নিয়ে বলার অধিকার আমার রয়েছে। আমি চ্যালেঞ্জ করছি। কারণ ২৬ হাজার ছেলেমেয়ের চাকরি বাতিল মানে প্রায় দেড় লক্ষ পরিবার। বলছে কি না আট বছর তাঁরা চাকরি করেছে, চার সপ্তাহের মধ্যে সব টাকা ফেরত দিতে হবে। এটা সম্ভব?

মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করার স্পেশাল লিভ পিটিশনে প্রশ্ন তোলা হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাকের ডিভিশন বেঞ্চ যেখানে রায় দিতে গিয়ে জানিয়েছে ছাঁটাই হওয়া প্রায় ২৬ হাজার শিক্ষক এবং অশিক্ষক কর্মচারীর মধ্যে যেখানে মাত্র পাঁচ হাজারের মতো শিক্ষক এবং অশিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে তার প্রেক্ষিতে, ৫ হাজার জনের জন্য কেন ২৬ হাজার জন ভুগবেন, কেন যোগ্য-অযোগ্যদের বিভাজন করা হল না?

সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের রায় বেরনোর পরই এসএসসি চেয়ারম্যান সিদ্ধার্থ মজুমদার জানিয়েছিলেন, তাঁদের কাছে ২০১৬ সালের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বেআইনি পথে চাকরি পাওয়া পাঁচ হাজার জনের তথ্য ছিল। কিন্তু, তার জন্য বাকি ১৯ হাজার জনের চাকরি কেন বাতিল করার নির্দেশ দেওয়া হল? সেদিনই তিনি জানিয়েছিলেন এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাবে এসএসসি। আজ অবশেষে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল এসএসসি।

পাশাপাশি কলকাতা হাইকোর্ট রায়ে জানিয়েছিল, লোকসভার নির্বাচন পর্ব মেটার পরে নতুন করে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে। এই বিষয়টি কেউ চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে জমা দেওয়া আবেদনপত্রে লেখা হয়েছে নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার অব্যবহিত করেই কিভাবে এত বড় আকারের নির্বাচিত নিয়োগ প্রক্রিয়ার শুরু করা যাবে?

Scroll to Top