হাইলাইট
।।উফ কী গরম
Part-164
।।বিধানসভার উপনির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দিলেন তৃণমূল প্রার্থী মুকুটমনি অধিকারী।।উফ কী গরম
Part-163
।।ফ্লাইট থেকে নেমেই আর শুনতে পাচ্ছেন না অলকা ইয়াগনিক,বিরল রোগের শিকার গায়িকা।।মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশে মেয়র ও পরিবহণ মন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে, কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের দুর্ঘটনায় কবলে পড়া যাত্রীদের রাত জেগে বাড়ি ফেরাল রাজ্য সরকার।।ভয়াবহ আগুনে পুড়ে ছাই হলং বনবাংলো।।তাপমাত্রা ৫১ ডিগ্রি ছাড়িয়েছে, হজে গিয়ে হিটস্ট্রোকে মৃত 500।।জলস্তর বৃদ্ধি তোর্সা নদীতে। এলাকা পরিদর্শনে পৌর প্রধান রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। কোচবিহার।।।।উফ কী গরম
Part 162
।।শিয়ালদহগামী কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস দুর্ঘটনা, মালগাড়ির সঙ্গে ধাক্কায় উল্টে গেলে 2 কামরা।।উপনির্বাচনের তিন প্রার্থীকে নিয়ে দলীয় বৈঠক।।অভিষেকের সিম ক্লোন করে ফোন।।ডায়মন্ড হারবারে বিপুল জয়, শুভেচ্ছা বিনিময়ে অভিষেক।।তিন কোটি টাকার বেআইনি সোনা সহ গ্রেফতার দুই।।তৃণমূল শিবিরে লাগাতার যোগদান কাল ঘাম ছোটাচ্ছে বিজেপির
৩৬৫ দিন Exclusive
khabar365din

উফ কী গরম
Part-164

উফ কী গরম ! HOT BIKINI ডেমি রোজ ৩৬৫ দিন। সান্তরিনি আইল্যান্ড তখন আরও ঝকঝকে।ঝলমলে রোদের সঙ্গে দ্বীপ যেনও আরও সাদা হয়েগেছে।এর মাঝেই পিঙ্ক বিকিনি

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

বিধানসভার উপনির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দিলেন তৃণমূল প্রার্থী মুকুটমনি অধিকারী

খবর ৩৬৫ নদিয়া:রানাঘাট দক্ষিণ বিধানসভা উপ নির্বাচনে বৃহস্পতিবার রানাঘাট মহকুমা শাসকের দপ্তরে গিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দিলেন তৃণমূল প্রার্থী ডাঃ মুকুটমনি অধিকারী। বৃহস্পতিবার সকালে রানাঘাট

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

উফ কী গরম
Part-163

উফ কী গরম HOT BIKINI ইরিনা আলেখিনা   ৩৬৫ দিন। কম বয়সেই উচ্চতার শিখরে।এক একটা সিঁড়ি পার করে এখন তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ।তিনি ইরিনা আলেখিনা।রাশিয়ার

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

ফ্লাইট থেকে নেমেই আর শুনতে পাচ্ছেন না অলকা ইয়াগনিক,বিরল রোগের শিকার গায়িকা

ক্রমশ শ্রবণশক্তি হারাচ্ছেন গায়িকা ৩৬৫ দিন।৯০ দশকে হার্টথ্রব অলকা ইয়াগনিক বিরল রোগের শিকার।বড় ঘটনা ঘটেছে তাঁর জীবনে।শ্রবণশক্তি হারিয়েছেন এই গায়িকা।বিরল স্নায়ুরোগে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।নিজেই ইনস্টাগ্রামে

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশে মেয়র ও পরিবহণ মন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে, কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের দুর্ঘটনায় কবলে পড়া যাত্রীদের রাত জেগে বাড়ি ফেরাল রাজ্য সরকার

৩৬৫ দিন। রেল কর্তৃপক্ষের চূড়ান্ত গাফিলতির জেরে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস। নিজেদের ওপর থেকে দোষ ঝেড়ে ফেলতে, তড়িঘড়ি মৃত চালকের ঘাড়ে দোষ চাপিয়েছে রেল

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

ভয়াবহ আগুনে পুড়ে ছাই হলং বনবাংলো

৩৬৫ দিন। বিধ্বংসী আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেল জলদাপাড়ার ঐতিহ্যবাহী সরকারি বনবাংলো হলং। রাত ৯টা নাগাদ হলং বাংলোতে কর্মীরা আগুন দেখতে পান। বর্ষায় জঙ্গল পর্যটকদের

Read More »
Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print

কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী অবস্থানকে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর

রাজ্যসঙ্গীত গাইতে গিয়ে পদে পদে হোচট খেলেন মোদী

৩৬৫দিন। কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী রায়কে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর। মঙ্গলবার সপ্তম দফার নির্বাচনের প্রচারে বাংলায় এসে তৃণমূল বিরোধী অবস্থানে জন্য কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিদের পিঠ চাপড়ালেন মোদি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য শুনেছেন? তাঁর আচরণ দেখেছেন? কীসব বলছেন উনি! আমি তো অবাক।আমাদের আদালতের রায় নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে? এখানকার বিচারপতিদের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে? বিচারব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে?এবার কি বিচারপতিদের পিছনে নিজেদের গুন্ডা লেলিয়ে দেবেন?এদিন বারাসাত এবং যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে দুটি জনসভা করার পর শ্যামবাজার থেকে বিবেকানন্দের বাড়ি পর্যন্ত রোড শো করেন তিনি।

জেলার থেকে লোক এনে মোদির রোড শোয়ে ভরাল

উত্তর কলকাতায় মোদির রোড শোয়ে স্থানীয় লোক কোথায়? রোড শোয়ে ভিড় বাড়াতে জেলার থেকে বাসে করে লোক আনতে হল ভাজপাকে। সূত্রের খবর, হাওড়া, হুগলি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা থেকে লোক নিয়ে এসে বিবেকানন্দ রোড ভরালো রাজ্য নেতৃত্ব। এদিন যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের জনসভা শেষ করে সন্ধ্যা ৭টার কিছু পরে প্রথমে বাগবাজারে মায়ের বাড়িতে পৌঁছন মোদি৷সূত্রের খবর, আলাদা করে বসার আসন তৈরি রাখা হলেও মাটিতে বসেই কয়েক মিনিটের জন্য ধ্যান করতে শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী৷ চলে ফটোশুট। সেখানে বেশ কিছুটা সময় কাটিয়ে এর পর শ্যামবাজার থেকে রোড শো শুরু করেন তিনি৷ শ্যামবাজারের পাঁচ মাথার মোড়ে নেতাজির মূর্তিতে মালা দিয়ে রোড শো করেন ১.৯ কিলোমিটার পথ। তাৎপর্যপূর্ণভাবে মোদির রথে উত্তর কলকাতার প্রার্থী তাপস রায় এবং দমদমের প্রার্থী শীলভদ্র দত্ত ছিলেন সবার পিছনে। নজরেই আসছিল না তারা। প্রধানমন্ত্রীর দু'পাশে হাতে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রতীক পদ্মফুল হাতে দেখা যায় সুকান্ত মজুমদার ও শুভেন্দু অধিকারীকে। সুকান্ত ও শুভেন্দু দেখে মনে হচ্ছিল তারাই যেন উত্তর কলকাতা ও দমদমের ভাজপা প্রার্থী।

স্টিং অপারেশন নিয়ে মুখে কুলুপ

সন্দেশখালির আসল ঘটনা প্রকাশ্যে আসায় মুখ পুড়েছে ভাজপার। তাই সপ্তম দফায় বসিরহাটের ভোটের আগেই স্টিং অপারেশন নিয়ে কোনো কথা না বললেও প্রিয় রেখা পাত্রের প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোদি। এদিন অশোকনগরের জনসভা থেকে মোদি বলেন,বসিরহাট থেকে আমাদের বোন রেখা পাত্র মঞ্চেই আছেন। আর কী দারুণ ভাষণ দিলেন ।আমি ওঁর সাহস, বীরত্বকে সম্মান জানাই। তিনি তৃণমূলের মতো এত বড় সত্ত্বার সঙ্গে লড়ছেন। ওনাকে মা দুর্গার শক্তির পুজারী বলে মনে হয়। বাংলায় শাহজাহান শেখের মতো অত্যাচারীদের সাহস... শুধু এখানেই নয়, সব গলি-পাড়াতে এমন লোক আছে, এদের সাহস ধ্বংস করার জন্য রেখা পাত্রকে জেতানো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

মোদির মুখে রাজ্য সংগীত, উচ্চারনে ফের হোঁচট

মঙ্গলবার যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের মঞ্চে দাঁড়িয়ে বাংলার রাজ্য সঙ্গীত ‘বাংলার মাটি বাংলার জল’ গাইতে হল প্রধানমন্ত্রীকে। কিন্তু আবারও বাংলা উচ্চারণ করতে গিয়ে হোঁচট খেতে হল।প্রথম ছত্র শেষ হওয়ার পরেই প্রায় না থেমেই মোদি বলেন, ‘আমার উচ্চারণ দোষ আপনারা ক্ষমা করবেন।’রাজ্য সংগীত বাংলার মাটি বাংলার জল’ কবিতার প্রথম কয়েকটি পঙ্‌ক্তি কোনো মতে উচ্চারণ করতে পারলেও শেষে এসেই হোঁচট খেলেন মোদি। ‘পুণ্য হউক পুণ্য হউক পুণ্য হউক হে ভগবান’ না বলে তিনি বলেন, ‘পুণ্য হউক পুণ্য হউক পুণ্য হউক কে...।' তারপর থেমে গিয়ে বলেন, পুণ্য হউক হে ভগওওবান। এর পরেই মোদীকে বলতে শোনা যায়, ম্যায় মেরি উচ্চারণ দোষকে লিয়ে আপ সে ক্ষমাপ্রার্থী রহুঙ্গা।মোদি বাংলায় এসে নিজের উপর থেকে ‘বহিরাগত’ ট্যাগলাইন মুছে ফেলতে মরিয়া চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত বাংলা উচ্চারণ করতে গিয়ে আবারো থমকে গেলেন। ফলে মোদির আবারও বাঙালি সাজার চেষ্টা ব্যর্থ হল বলেই মনে করা হচ্ছে।

কালো টাকা বার করতে এক্সরে

তৃণমূলকে আক্রমণ করে মোদি বলেন, তৃণমূলের সঙ্গে সুশাসনের কোনও সম্পর্ক নেই। বাংলায় সুশাসন দুরবিন- মাইক্রোস্কোপ দিয়েও খুঁজে পাওয়া যায় না। তৃণমূল অসাংবিধানিক ভাবে ৭৭ মুসলিম জাতিকে ওবিসি ঘোষণা করেছিল।ওবিসি সার্টিফিকেট বাতিল নিয়ে হাই কোর্টের নির্দেশ ওদের মানতেই হবে।বাংলার বুদ্ধিমান মানুষ জানেন দেশের সরকার ‘দমদার’ হওয়া উচিত। বাংলায় যারা দুর্নীতি করেছে, তাদের বের করে দেব আর যাদের থেকে লুঠ করা হয়েছে, তাদের সব ফিরিয়ে দেব।তৃণমূলের নেতাদের কাছে যে নোটের পাহাড় দেখা গিয়েছে, সেই সব টাকার হিসেব হবে।এবার দুর্নীতিবাজদের কালো টাকার এক্স রে করব।

Scroll to Top