হাইলাইট
।।ভোটের জন্য বহুরূপী সাজলেও না জানেন রবীন্দ্রনাথ, না জানেন মহাত্মা গান্ধি।।কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী অবস্থানকে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর।।চরম অটোক্র্যাট মোদি ৮০000 হাজার টাকার ব্যাঙের ছাতা খান।।সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চরম বিতর্কিত হিন্দু ধর্মের বিজ্ঞাপন।।এই কদর্য রিমেক ভাজপাকেই মানায়।।প্রধানমন্ত্রীর পদ ব্যবহার করে বিজেপির প্রচার করছেন মো।।ভাজপা প্রার্থী হিরণের ডক্টরেট ডিগ্রি জাল।।বিজেপির দিকে ভোট সুইং হবে না, মোদিকে চ্যালেঞ্জ, দম থাকলে আমার সঙ্গে মুখোমুখি বিতর্ক সভায় বসুন।।থেকে যাওনা গো।।মমতার তরুণ তুর্কি দেবাংশু নীল ঘোড়ায়।।সর্বত্র ভাজপা হারছে, না হলে বলে জগন্নাথদেবও মোদির ভক্ত।।বিজেপির একটা বুথে মদ খাওয়ার খরচ ৫০০০ টাকা।।৬ মাসের মধ্যে শুরু হবে ঘাটাল মাস্টারপ্ল্যানের কাজ।।পুরুলিয়ায় মোদির মঞ্চে ভারত সেবাশ্রমের সাধু।।১ মের বদলে ১ এপ্রিল থেকে ডিএ দেওয়ার সিদ্ধান্ত
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

ভোটের জন্য বহুরূপী সাজলেও না জানেন রবীন্দ্রনাথ, না জানেন মহাত্মা গান্ধি

ভোটের শেষ লগ্নে মোদিবাবুর মত, গান্ধি সিনেমা তোলা না হলে সারা বিশ্ব গান্ধির নামও জানত না ৩৬৫ দিন। ১০ অগাস্ট ২০০৭ : দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষের

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী অবস্থানকে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর

রাজ্যসঙ্গীত গাইতে গিয়ে পদে পদে হোচট খেলেন মোদী ৩৬৫দিন। কলকাতা হাইকোর্টের তৃণমূল বিরোধী রায়কে সমর্থন প্রধানমন্ত্রীর। মঙ্গলবার সপ্তম দফার নির্বাচনের প্রচারে বাংলায় এসে তৃণমূল বিরোধী

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

চরম অটোক্র্যাট মোদি ৮০000 হাজার টাকার ব্যাঙের ছাতা খান

মোদির স্বৈরতান্ত্রিকত আচরণের বিরুদ্ধে মমতার গর্জন ৩৬৫ দিন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লাঞ্চের খরচ প্রায় চার লক্ষ টাকা। উনি যে ব্যাঙের ছাতা বা মাশরুম খান সেটি

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চরম বিতর্কিত হিন্দু ধর্মের বিজ্ঞাপন

এবার ঘোমটার আড়ালে ভাজপার খ্যামটা নাচ,নিউজ মিডিয়া ছেড়ে সোশাল মিডিয়ায় বিপুল টাকা ঢেলে ৩৬৫ দিন। মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়! তার জেরে জাতীয় নির্বাচন কমিশন

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

এই কদর্য রিমেক ভাজপাকেই মানায়

গৌতম ঘোষের ধিক্কার গৌতম ঘোষ। ৩৬৫ দিন। সত্যজিৎ রায়ের হীরক রাজার দেশে ছবিকে ,তার সংলাপকে, সেটকে এবং চরিত্রদের বিকৃত করে যে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন বিজেপি নির্মাণ

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

প্রধানমন্ত্রীর পদ ব্যবহার করে বিজেপির প্রচার করছেন মো

মমতার গর্জন, বিজ্ঞাপনেও লিখছে প্রধানমন্ত্রীর রোড শো ৩৬৫ দিন। আগামীকাল মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির রোড শো উত্তর কলকাতায়। নির্বাচন চলাকালীন প্রধানমন্ত্রীর ব্যাচ লাগিয়ে এই রোড

Read More »
Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print

লড়াই চলছে, ওরা পারলে আমাকে মেরে ফেলতেও পারে

পার্থ ভৌমিকের প্রচার সভায় ভাজপার চক্রান্ত নিয়ে মমতার আশঙ্কা

৩৬৫ দিন। লোকসভা ভোটের প্রচারে যেভাবে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ভাজপা কিংবা মোদি-শাহ বিরোধী অবস্থান নিয়েছেন সে কারণে এই লড়াইয়ে মমতাকে ভাজপা মেরেও ফেলতে পারে। রবিবার ব্যারাকপুরের আমডাঙায় পার্থ ভৌমিকের সমর্থনে জনসভা থেকে এই আশঙ্কাই করলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। একইসঙ্গে মমতার কথায় নরেন্দ্র মোদির নতুন 'ফোর টুয়েন্টির গ্যারান্টি'র নামে বাংলার বিরুদ্ধে অপপ্রচার হল, বাংলায় মুসলমানেরা তপশিলি জাতি ও উপজাতি শ্রেণীর মানুষের কোটা কেটে নেবে। এদিন উলুবেড়িয়ায় সাজদা আহমেদের সমর্থনে আরেক জনসভা থেকে কুৎসাকারী ভাজপার বিরুদ্ধে সরব হলেন মুখ ্যমন্ত্রী। কয়লা এবং গরু পাচার দুর্নীতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের গ্রেপ্তারিও দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন মুখ্যমন্ত্রী যা বললেন, ১. এটা একটা লড়াই চলছে। ওরা পারলে আমাকে মেরেও ফেলতে পারে।

নিজের প্রচারের ঘন্টা বাজাতে বাজাতে বিজেপির মৃত্যু ঘন্টাই বেজে গেছে। মোদির গ্যারান্টি বলবেন না, বলবেন ফোর টুয়েন্টির গ্যারান্টি।

২. আমরা নাকি মাইনরিটিদের রিজার্ভেশন দিয়ে দেবো সিডিউল কাস্টদের কোটা থেকে। আমি মাইনরিটি বেল্টে দাঁড়িয়ে বলছি, আপনার বুকের পাটা থাকলে আপনি এ কথা মাইনরিটি বেল্টে বলতে পারতেন না। তার কারণ আমি এতটাই সাচ্চা। কেন মুসলিমরা কাটতে যাবে সিডিউল কাস্টদের কোটা। আপনি কুৎসাকারি হিন্দু মুসলমানের ভাগাভাগি করেন, লজ্জা করেনা। দাঙ্গা দিয়ে তো শুরু হয়েছিল আপনার জীবন। আপনার মত বেশি রাজনৈতিক বুদ্ধি আমার নেই। দশ বছর আগে ওবিসি রিজার্ভেশন বাংলায় হয়েছে। তার জন্য জেনারেল কাস্ট এর কোটা বাড়িয়েছি। বরঞ্চ তপশিলিদের কোটা বাড়তে পারে কমবে না। আর মুসলিমরা এই ধরনের আচরণ করে না। বাংলায় তপশিলিরা ভালো আছে। আপনার ফোর টুয়েন্টির গ্যারান্টি আমি ফুৎকার দিয়ে উড়িয়ে দিলাম।

৩. বাংলায় বিদায়ী প্রধানমন্ত্রীর মিটিং ছিল, তিনি নাকি গ্যারান্টি দিয়েছেন। ক্যা মতুয়াদের করতেই হবে। গায়ের জোরে হবে না। ওরা আপনাকে ভোট দিয়েছিল আপনার লজ্জা করে না। ওরা ইতিমধ্যেই নাগরিক। মতুয়াদের অধিকার কারতে এসেছেন। কিছুদালাল আছেআপনার, ওরা ফিসফিস করে আপনার কানে বলে, নিজে কিছু দেখেন না। আমার মতুয়া ভাইবোনদের গায়ে হাত দিলে আমার গায়ে হাত দেওয়া হবে।

৪. মতুয়াদের নিঃশর্ত অধিকার দিন। না হলে ট্যা ফু করতে দেব না। মানুষকে তাড়াতে গেলে বাংলায় ঢুকতে দেবো না। আপনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আসতে পারেন কিন্তু বিজেপি নেতা হিসেবে আপনি আগুন জ্বালাতে পারেন না। আসামে ১৯ লক্ষ লোকের নাম বাদ দিয়েছো কেন এনআরসির নাম করে আমাকে জবাব দাও। ইউনিফর্ম সিভিল কোর্ট এর অর্থ হল আদিবাসীদের কোন অধিকার থাকবে। না। বাংলায় এনআরসি ইউনিফর্ম সিভিল কোর্ট, ক্যা করতে দেবো না।

৫. সবচেয়ে বড় কয়লা চোর কে কেন্দ্রীয় সরকার কারণ কয়লা তোমার অধীনে। আমাদের অধীনে নয়। সবচেয়ে বেশি গরু চোর কে কেন্দ্রীয় সরকার ওটা আমাদের অধীনে নয়। ওটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের আন্ডারে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। তাকে গ্রেফতার করা উচিত।

৬. সন্দেশখালি তেমা-বোনেদের সম্মান কিভাবে নষ্ট করেছেন টাকার বিনিময়ে। লজ্জা করে না। এখনো সন্দেশখালি নিয়ে মিথ্যে কথা বলে যাচ্ছেন। সন্দেশ তো আপনার জন্য অপেক্ষা করছে। রেজাল্টটা মিলিয়ে নেবেন। দেশকা খবর কেয়া হ্যা? মোদি হার রাহা হ্যা। সন্দেশখালি নিয়ে চক্রান্ত করল। মোদি গ্যারান্টি। বেচারা মা-বোনেরা জানেও না ওখানকার যে তাদের হাত দিয়ে কী লিখিয়েছে। খবরদার কেউ কিছু লিখতে গেলে লিখবেন না। তাদের দিয়ে ষড়যন্ত্র করিয়ে বলছে পুরো দেশ দেখছে। আরে পুরো দেশের টিভি তো আপনি চালান। আসল কথা টিভির লোকেরা বলে না।

৭. প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি রাজভবনের লাটু সাহেব। মেয়েরা যেতে পারছে না ভয়ে। আমিতো কনস্টিটিউশনাল ক্রাইসিসে পড়ে যাচ্ছি। অন্য জায়গায় গেলেও রাজভবনে ঢুকতে ভয় পাচ্ছি। কারণেই রাজ্যপালের যেসব কীর্তি কেলেঙ্কারি বেরিয়েছে তার জন্য। কি প্রধানমন্ত্রী আপনার উচিত ছিল না তাকে পদত্যাগ করিয়ে সরিয়ে নেওয়া।

৮. তৃণমূল নাকি চোর দুটো নেতার বাড়ির থেকেটাকা পাওয়া গেছে আর তোমরা ওয়াশিং মেশিনে ঢুকে কালো থেকে সাদা হয়ে গেছো। ভাজপা করলে ইডি, সিবিআই যাবে না। সবচেয়ে বড় চোর ওরা। ওরা হচ্ছে পকেটমার গরিবের টাকা লুট করেছে।

৯. জুট নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে, জুট ইন্ডাস্ট্রিকে ভাতে মারার জন্য ব্যারাকপুরে অনেক জুট ইন্ডাস্ট্রি রয়েছে।

১০. দয়া করে কোন গুন্ডাকে আর ভোট দেবেন না। নির্বাচনের পরে আর দাঙ্গা করতে দেবেন না। মোদি কিছু করেনা শুধু মিথ্যে কথা বলে আর কুৎসা রটনা করে। আমি রাজীব গান্ধী মনমোহন সিং দেবে গৌরা অটল বিহারী বাজপায়ী কেউ দেখেছি কিন্তু এই নরেন্দ্র মোদির মতো এত কুৎসাকারী প্রধানমন্ত্রী আমি কোথাও দেখিনি।

১১. আজকেও শুনেছি, একটা রবীন্দ্রনাথের ছবিকে উল্টো করে দিচ্ছিল গ্যারান্টি বাবুকে। আর বলছিল গ্যারান্টি বাবু জিন্দাবাদ। প্রার্থী আবার দেখতে পেয়ে ছবিটা কে সোজা করল। ১২. সব মিডিয়াকেটাকা দিয়ে কিনে নিয়েছেন। দালালি করছেতারা। আজকে কেন দেখাচ্ছেনা মিডিয়া। কারণ বিজেপি অফিস থেকে বলে দিয়েছে, এটা দেখাবে না। আজকে উত্তরপ্রদেশে একটি মেয়েকে ধর্ষণ করে দিয়ে ফেলে রেখে গেছো।

১৩. একটা করে ভোট আসছে আর বেচারা রেগে রেগে যাচ্ছে। আমি অনেক প্রধানমন্ত্রী দেখেছি কিন্তু এই রকম নিষ্ঠুর প্রধানমন্ত্রী আমি আজ পর্যন্ত দেখিনি। মোদি বাবু এখন থেকে ছাদা বাঁধুন, কারণ যে অন্যায়গুলো আপনারা করেছেন সেই খাতাগুলো যদি জনগণ খুলতে শুরু করে তাহলে আপনার কি হবে। আজ মাদার্স ডে তে সব মায়েরা শপথ নিন সব ভাইয়েরা শপথ নিন মোদিকে দেশ থেকে বিদায় দিন।

১৪. নিজেকে প্রচার করতে উনি এত ভালবাসেন যে পিসি সরকারের ম্যাজিক কেউহার মানিয়ে দেবেন। মিথ্যে কথা বলায় ওনাকে ১০০ তে ১২০ দিতে হবে। ১৫. আমায় যতই চোর বলুন, আমার গায়ে ফোসকা পড়বে না। আপনারা যে যত ভয় পেয়েছেন এটা তারই প্রমাণ। বাংলা যা কাজ করেছে সারা পৃথিবীর প্রান্তে এই কাজ হয়নি।

১৬. টিভি খুলুন ইউটিউব খুলুন বাবুর জয় গান এটা কখন হয় জানেন যখন দেশে মাৎস্যনয় হয়। অন্য কারোর কিছু বলার থাকেনা।

১৭. আমি ব্যারাকপুরে পার্থকে ভোট দিতে বলবো এই কারণেই, গতবার নির্বাচনের পর কখনো ভাটপাড়া কখনো নৈহাটি এইসব অঞ্চলে আমি ঘুরে বেড়িয়েছিলাম। ওরা মসজিদে বোমা মেরেছিল। বাংলা রমণীরা আতঙ্কে কাঁপছিল। আর কয়েকটা গুন্ডা আমার গাড়ি আটকেউল্টোপাল্টা স্লোগান দিচ্ছিল যাতে আমি ফিরে যাই। ওরা আমায় জানেনা আমাকে কেউ তরপালে আমি তাকে পাল্টা দিই।

১৮. আমরাও হিন্দু কিন্তু আমরা ওদের মতো খুনি হিন্দু নই আমরা রামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের হিন্দু আমরা স্বামী বিবেকানন্দের হিন্দু। আমরা মা দুর্গা মা কালীর হিন্দু।

১৯. ওরা রীতিবিরুদ্ধ ভাবে বিজ্ঞাপন করছে। প্রচারিত বা প্রকাশিতের নাম নেই কিন্তু কিছু কিছু সংবাদপত্র টাকার লোভে করছে। আগামী দিন এইসব সংবাদপত্রগুলো আর নেবেন না।

২০. তিনটে ফেজে যে নির্বাচন হয়েছে প্রথমটায় এপাস দ্বিতীয়টায় ওপাশ এবং তৃতীয়তায় ধপাস। সারা পৃথিবীর শেয়ার মার্কেট ক্রাশ করে গেছে। ভারতবর্ষে যে লগ্নি করছিল পৃথিবীর অন্যান্য দেশ তারা সব টাকা তুলে নিয়ে চলে যাচ্ছে। জিরো গ্যারান্টির ৪২০ দিল্লি তে হারছে। বিহারে হারছে। উত্তরপ্রদেশ রাজস্থান মধ্যপ্রদেশ দক্ষিণ ভারতে হারছে। বাংলায় তো হারবেই তাই এখন কাঁদছে।

Scroll to Top