হাইলাইট
।।উফ কী গরম ! Part-189।।রাজ্য পুলিশের ডিজি পদে ফিরলেন রাজীব কুমার।।টালা ঝিলপার্ক, রাসেল স্ট্রিট, পাটুলিতে হচ্ছে স্ট্রিট ফুড হাব।।মানবিক মুখ্যমন্ত্রী : প্রাক্তন কারামন্ত্রীর চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ।।নামী রেস্তোরাঁর বিরিয়ানিতে বিষ রং পুরসভার জরিমানা ৩ লক্ষ টাকা।।উফ কী গরম ! Part-188।।শপথের জন্য রাজ্যপালকে আর্জি,রাজ্যপাল টালবাহানা করলে শপথ পাঠ করাবেন অধ্যক্ষ।।মিথ্যা ন্যারেটিভ ছড়িয়ে বাংলায় দাঙ্গার চক্রান্ত, অসমের গরু পাচারের ভিডিও হুগলির ঘটনা বলে প্রচার।।আকাশ দখল ঠেকাতে কেএমসি’র নয়া নীতি, তৈরি হবে নো হোর্ডিং জোন।।ত্রাতা মার্তিনেজ, কলম্বিয়াকে হারিয়ে কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।।গাছেদের সুরক্ষায় কলকাতায় চালু হবে ট্রি অ্যাম্বুলেন্স।।শতবর্ষে বাদল সরকার,শহরে চলছে বাদল থিয়েটার মেলা।।আততায়ী কে? ২০ বছরের মেধাবী ছাত্র টমাস ম্যাথিউ ক্রুকস।।উফ কী গরম ! Part-187।।মার্কিন বন্দুকবাজের হাতে খুন ৪ প্রেসিডেন্ট, ৮ অল্পের জন্য রক্ষা
বিবি
Avinash

উফ কী গরম ! Part-189

উফ কী গরম ! HOT BIKINI নিকোল মিনেতি ৩৬৫ দিন। কম বয়সেই উচ্চতার শিখরে উঠেছিলেন।এক একটা সিঁড়ি পার করে এখন তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ।টেলিভিশন থেকে

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

রাজ্য পুলিশের ডিজি পদে ফিরলেন রাজীব কুমার

৩৬৫ দিন। ফিরে এলেন রাজীব কুমার। ফিরলেন রাজ্য পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল পদে। লোকসভা নির্বাচনের পরে রাজ্য পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল রাজীব কুমারকে সরিয়ে দিয়েছিল জাতীয় নির্বাচন

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

টালা ঝিলপার্ক, রাসেল স্ট্রিট, পাটুলিতে হচ্ছে স্ট্রিট ফুড হাব

৩৬৫ দিন। কলকাতা শহরের স্ট্রিট ফুডের সংস্কৃতি দীর্ঘদিনের। ডেকারস লেন থেকে শুরু করে টেরিটি বাজারের স্ট্রিট ফুড বিশ্বের যে কোন দেশের স্ট্রিট ফুডের সঙ্গে পাল্লা

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

মানবিক মুখ্যমন্ত্রী : প্রাক্তন কারামন্ত্রীর চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ

৩৬৫দিন। মানবিক মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের প্রাক্তন কারামন্ত্রী তথা আরএসপির নেতা বিশ্বনাথ চৌধুরীর চিকিৎসার জন্য উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী। ৭ বারের আরএসপি বিধায়ক দীর্ঘ দিন ধরে ক্যানসারে ভুগছেন।

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

নামী রেস্তোরাঁর বিরিয়ানিতে বিষ রং পুরসভার জরিমানা ৩ লক্ষ টাকা

৩৬৫ দিন।কলকাতা পুরসভার অভিযানে সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য।পার্ক সার্কাসের নামি বিরিয়ানির দোকানে মেশানো হচ্ছে রং।সেই রং যে বিষাক্ত তা ধরা পড়ল পরীক্ষা করে।রেস্তরাঁটির বিরিয়ানির নমুনা

Read More »
বিবি
Avinash

উফ কী গরম ! Part-188

উফ কী গরম ! HOT BIKINI মিডিয়াম জিওভেনালি ৩৬৫ দিন। জনপ্রিয় মডেল তো বটেই।তবে বডি বিল্ডার হিসেবেই বেশি বিখ্যাত তিনি।কিভাবে নিজের শরীর-স্বাস্থ্য সুস্থ রাখেন তিনি

Read More »
Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print

পদ্মপাল ভুলভাল, রাজ্যপালের নির্দেশ না মেনে বিধানসভায় শপথ পাঠ করলেন স্পিকার

৩৬৫ দিন। রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের কাছে শপথ গ্রহণ নয়, বাংলার বিধানসভার চিরাচরিত প্রথা মেনে বিধানসভাতেই রাজ্য বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে শপথ গ্রহণ করলেন তৃণমূলের দুই নবনির্বাচিত বিধায়ক। এই ঘটনা এই নাকি তীব্র অপমানিত বোধ করেছেন ধর্ষণে অভিযুক্ত বাংলার রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেকে তীব্র অপমানিত বলে দাবি করে রাষ্ট্রপতির কাছে নালিশ জানানোর হুঁশিয়ারি দিয়ে ফেলেছেন।

গত ৪ জুন বরানগর এবং ভগবানগোলা বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজয়ী ঘোষিত হওয়ার পরেও দীর্ঘ এক মাস কেটে গেলেও বিধানসভার অধ্যক্ষ এবং নবনির্বাচিত বিধায়কদের আবেদনে সাড়া দিয়ে শপথ গ্রহণের অনুমতি দেন নি ধর্ষণে অভিযুক্ত বাংলার রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। এরপরে গতকাল রীতিমত নজিরবিহীন ভাবে রাজ্য বিধানসভার অধ্যক্ষ বিশেষ অধিকার বলে বিধানসভার বিশেষ অধিবেশন এবং বিজনেস এডভাইসারি কমিটির বৈঠক ডাকেন আজ। সেখানেই বিধানসভার অধ্যক্ষ তার হাতে থাকা সাংবিধানিক বিশেষ অধিকার বলে নবনির্বাচিত বিধায়কদের শপথ বাক্য করাতে পারেন বুঝতে পেরে তড়িঘড়ি গতকাল গভীর রাতে বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায়কে শপথ বাক্য পাঠ করানোর জন্য মনোনীত করেন রাজ্যপাল। কিন্তু সাংবিধানিক প্রথা অনুযায়ী বিধানসভায় অধ্যক্ষ বা স্পিকার উপস্থিত থাকাকালীন তাকে উপেক্ষা করে শপথ বাক্য পাঠ করাতে পারেন না ডেপুটি স্পিকার। এমনকি সংবিধানে যে ১৮৮ নম্বর ধারা রয়েছে সেখানে রাজ্যপালের ভূমিকা প্রসঙ্গে স্পষ্ট ভাষায় বিধানসভার অধ্যক্ষের সঙ্গে আলোচনাক্রমে শপথ গ্রহণের দায়িত্ব কারো ওপরে অর্পণ করার কথা স্পষ্ট ভাবে বলা থাকলেও রাজ্যপাল অসাংবিধানিক পদক্ষেপ নিয়ে তা অমান্য করায় আজ শপথ বাক্য পাঠ করান বিধানসভার অধ্যক্ষ নিজে।

গতকাল গভীর রাতে রাজ্যপাল দুই বিধায়কের শপথ গ্রহণের জন্য নিজের প্রতিনিধি হিসেবে নিযুক্ত করেছিলেন রাজ্য বিধানসভার ডেপুটি স্পিকারকে। কিন্তু আজ বিধানসভার বিশেষ অধিবেশন শুরু হওয়ার পরে ডেপুটি স্পিকার আসিস বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় ঘোষণা করেন, স্পিকারের সামনে তিনি ওই দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। তাঁর অনুরোধেই সায়ন্তিকাদের শপথবাক্য পাঠ করান স্পিকার বিমান। একই সঙ্গে তিনি জানান, তাঁর শপথবাক্য পাঠ করানোয় কোনও গলদ নেই। রুলস অফ বিজনেস-এর ২ নম্বর অধ্যায়ের ৫ নম্বর ধারা মেনে তিনি সায়ন্তিকাদের শপথবাক্য পাঠ করাচ্ছেন। যে হেতু বিধানসভার অধিবেশন চালু আছে, তাই রাজ্যপালের ওই চিঠি মান্যতা পেল না।

অর্থাৎ, স্পিকার যেখানে উপস্থিত সেখানে ডেপুটি স্পিকারকে কোনও দায়িত্ব পালন করতে অতীতে কখনও দেখা যায়নি। সাধারণত, যখন স্পিকার বিধানসভায় উপস্থিত থাকেন, তখন কোনও দায়িত্বপালন করেন না ডেপুটি স্পিকার।

শপথ গ্রহণ সম্পূর্ণ বৈধ - জানালেন স্পিকার

দুই বিধায়ককে শপথবাক্য পাঠ করিয়ে বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, আমার অফিস গতকাল রাজভবন থেকে একটি চিঠি পায় রাত ৯.২২ মিনিটে, যেখানে উপাধ্যক্ষকে শপথপাঠ করানোর জন্য মনোনীত করা হয় রাজ্যপালের পক্ষ থেকে। সুপ্রিম কোর্টের একটি রায়ে বলা হয়েছিল যে, বিধানসভা বা সংসদে সাংবিধানিক রীতি হিসাবে যদি কিছু মেনে চলা হয়, তাহলে সেটা আইনে থাক বা না থাক, তা রীতি অনুযায়ী মেনে নেওয়া যেতে পারে। আমি জানতে পারি যে উপ নির্বাচনে জয়ী দুই বিধায়ক রাজ্যপালকে বিধানসভায় এসে শপথ বাক্য পাঠ করানোর জন্য অনুরোধ জানান। এই চিঠি আমাকেও তাঁরা পাঠিয়েছিলেন। পরিষদীয় মন্ত্রী আমার কাছে আবেদন করেন যাতে বিধানসভার বিশেষ অধিবেশন ডেকে এই দুই বিধায়কের শপথ অনুষ্ঠান করা যায়। আমি সবকিছু বিবেচনা করে এই বিশেষ অধিবেশন ডাকার সিদ্ধান্ত নি‌ই। দুই বিধায়ক নির্বাচনে জয়ী হ‌ওয়ার পরেও বিধানসভার সদস্য হিসাবে শপথ নিতে না পারার কারণে, তাঁরা বিধানসভার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কমিটির সদস্য হতে পারছেন না।

রাষ্ট্রপতিকে নালিশ তীব্র অপমানিত রাজ্যপালের

বিধানসভার সচিবালয়ের সঙ্গে চূড়ান্ত অসহযোগিতা এবং অসাংবিধানিক কার্যকলাপ করার পরেও যে বিধানসভার অধ্যক্ষ তাকে কার্যত পাত্তা না দিয়ে সাংবিধানিক রীতি মেনে বিধানসভা তেই দুই বিধায়ককে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন তাতে তীব্র অপমানিত বোধ করেছেন ধর্ষণে অভিযুক্ত বাংলার রাজ্যপাল। নিজের অপমানের কথা জানিয়ে রাজ্যপালের তরফে একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করে জানানো হয়, দুই বিধায়কের শপথ নিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে রিপোর্ট পাঠানো হচ্ছে। অসাংবিধানিক শপথ। গত বৃহস্পতিবার ডেপুটি স্পিকারকে শপথবাক্য পাঠ করানোর জন্য অনুমতি দেন রাজ্যপাল। তারপরেও কীভাবে স্পিকার শপথ বাক্য পাঠ করালেন?

রাজ্যপালের কোনও ক্ষমতা নেই স্পিকারকে অপসারণ করার

রাজ্যপাল তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন শোনার পরে রাজা বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, খুব আনন্দের কথা। আমি আরও খুশি হতাম, যদি উনি আগেই এটা করতেন। কারণ রাষ্ট্রপতিজিকে আমরা আগে জানিয়েছি। তবে রাজ্যপালের কোনও সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের জবাব আমি দেব না। আমি যা করার আইনসঙ্গত ভাবেই করেছি। আর তা বিধানসভায় নথিভুক্তও হয়ে গিয়েছে। রাজ্যপালের কোনও ক্ষমতা নেই স্পিকারকে অপসারণ করার। আর রাষ্ট্রপতিরও সেই ক্ষমতা নেই।

Scroll to Top