হাইলাইট
।।উফ কী গরম ! Part-189।।রাজ্য পুলিশের ডিজি পদে ফিরলেন রাজীব কুমার।।টালা ঝিলপার্ক, রাসেল স্ট্রিট, পাটুলিতে হচ্ছে স্ট্রিট ফুড হাব।।মানবিক মুখ্যমন্ত্রী : প্রাক্তন কারামন্ত্রীর চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ।।নামী রেস্তোরাঁর বিরিয়ানিতে বিষ রং পুরসভার জরিমানা ৩ লক্ষ টাকা।।উফ কী গরম ! Part-188।।শপথের জন্য রাজ্যপালকে আর্জি,রাজ্যপাল টালবাহানা করলে শপথ পাঠ করাবেন অধ্যক্ষ।।মিথ্যা ন্যারেটিভ ছড়িয়ে বাংলায় দাঙ্গার চক্রান্ত, অসমের গরু পাচারের ভিডিও হুগলির ঘটনা বলে প্রচার।।আকাশ দখল ঠেকাতে কেএমসি’র নয়া নীতি, তৈরি হবে নো হোর্ডিং জোন।।ত্রাতা মার্তিনেজ, কলম্বিয়াকে হারিয়ে কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।।গাছেদের সুরক্ষায় কলকাতায় চালু হবে ট্রি অ্যাম্বুলেন্স।।শতবর্ষে বাদল সরকার,শহরে চলছে বাদল থিয়েটার মেলা।।আততায়ী কে? ২০ বছরের মেধাবী ছাত্র টমাস ম্যাথিউ ক্রুকস।।উফ কী গরম ! Part-187।।মার্কিন বন্দুকবাজের হাতে খুন ৪ প্রেসিডেন্ট, ৮ অল্পের জন্য রক্ষা
বিবি
Avinash

উফ কী গরম ! Part-189

উফ কী গরম ! HOT BIKINI নিকোল মিনেতি ৩৬৫ দিন। কম বয়সেই উচ্চতার শিখরে উঠেছিলেন।এক একটা সিঁড়ি পার করে এখন তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ।টেলিভিশন থেকে

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

রাজ্য পুলিশের ডিজি পদে ফিরলেন রাজীব কুমার

৩৬৫ দিন। ফিরে এলেন রাজীব কুমার। ফিরলেন রাজ্য পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল পদে। লোকসভা নির্বাচনের পরে রাজ্য পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল রাজীব কুমারকে সরিয়ে দিয়েছিল জাতীয় নির্বাচন

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

টালা ঝিলপার্ক, রাসেল স্ট্রিট, পাটুলিতে হচ্ছে স্ট্রিট ফুড হাব

৩৬৫ দিন। কলকাতা শহরের স্ট্রিট ফুডের সংস্কৃতি দীর্ঘদিনের। ডেকারস লেন থেকে শুরু করে টেরিটি বাজারের স্ট্রিট ফুড বিশ্বের যে কোন দেশের স্ট্রিট ফুডের সঙ্গে পাল্লা

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

মানবিক মুখ্যমন্ত্রী : প্রাক্তন কারামন্ত্রীর চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ

৩৬৫দিন। মানবিক মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের প্রাক্তন কারামন্ত্রী তথা আরএসপির নেতা বিশ্বনাথ চৌধুরীর চিকিৎসার জন্য উদ্যোগী হলেন মুখ্যমন্ত্রী। ৭ বারের আরএসপি বিধায়ক দীর্ঘ দিন ধরে ক্যানসারে ভুগছেন।

Read More »
৩৬৫ দিন Exclusive
Avinash

নামী রেস্তোরাঁর বিরিয়ানিতে বিষ রং পুরসভার জরিমানা ৩ লক্ষ টাকা

৩৬৫ দিন।কলকাতা পুরসভার অভিযানে সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য।পার্ক সার্কাসের নামি বিরিয়ানির দোকানে মেশানো হচ্ছে রং।সেই রং যে বিষাক্ত তা ধরা পড়ল পরীক্ষা করে।রেস্তরাঁটির বিরিয়ানির নমুনা

Read More »
বিবি
Avinash

উফ কী গরম ! Part-188

উফ কী গরম ! HOT BIKINI মিডিয়াম জিওভেনালি ৩৬৫ দিন। জনপ্রিয় মডেল তো বটেই।তবে বডি বিল্ডার হিসেবেই বেশি বিখ্যাত তিনি।কিভাবে নিজের শরীর-স্বাস্থ্য সুস্থ রাখেন তিনি

Read More »
Facebook
Twitter
LinkedIn
WhatsApp
Email
Print

উফ কী গরম ! Part – 178

উফ কী গরম !

HOT BIKINI

জেইনেপ তুগে বায়াত

৩৬৫ দিন। জেইনেপ তুগে বায়াত হলেন একজন তুর্কি অভিনেত্রী। তিনি মূলত তুর্কির অত্যন্ত জনপ্রিয় ওয়েব সিরিজ সিলেক কোকুসু- তে তারগুন হাতুন চরিত্রে অভিনয়ের জন্য পরিচিত । ছোটবেলা থেকেই তিনি মোটেও অভিনেত্রী হতে চাননি চেয়েছিলেন একজন বড় আইনজীবী হতে। ছোট থেকেই তিনি দেখেছেন তার বাবা মাকে কষ্ট করতে। তাদের পরিবার মূলত যাযাবর প্রজাতির হওয়ার কারণে তাদেরকে সমাজে উঁচু চোখে দেখা হত না। ছোটবেলায় তিনি বাবাকে প্রশ্ন করেছিলেন আমরা সবার থেকে আলাদা কেন তার উত্তরে তার বাবা তাকে কোনও জবাব দিতে পারেন নি। পরে তিনি বড় হওয়ার পর বুঝতে পারেন তাদের আসল পরিচয়। তার জন্ম হয় বায়াত মেরসিনে। তার পরিবারের প্রজন্ম ধরে বৃষ পর্বতমালায় যাযাবর তুর্কি । তার উপাধি বায়াত ১২টি ওগুজ উপজাতির মধ্যে একটি । পরে, তিনি মারমারা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে স্নাতক হন । তিনি আনাদোলু বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেট কনজারভেটরির থিয়েটার বিভাগ থেকেও পড়াশোনা করেছেন এবং স্নাতক হয়েছেন। ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সময়, তিনি প্রাইভেট থিয়েটারে পর্দার আড়ালে কাজ করেছিলেন, অর্থের প্রয়োজনে। যার ফলে তিনি ক্লোজার নামে একটি নাটকের জন্য পুরস্কারও জিতেছিলেন । ইন্টার্নশিপের পর উচ্চতর স্তরে অভিনয় অধ্যয়নের জন্য তিনি স্পেনে যান । জেইনেপ বেয়াজ গেলিঙ্কিক নামে একটি সিরিজে প্রথম তিনি টিভির পর্দায় আসেন , যেটি ২০০৬ সালে সম্প্রচারিত হয়েছিল এবং এখন তিনি জনপ্রিয় তুর্কি টিভি সিরিজ , তেকিলাতে অভিনয় করছেন । এছাড়াও, তিনি ছোট সিরিজ লিখেছেন এবং তাতে অভিনয়ও করেছেন ।

HOT SPOT

গ্র্যান্ড বাজার,ইস্তানবুল

পৃথিবীর প্রথম শপিং মল বলা হয় গ্র্যান্ড বাজারকে। যাকে তুর্কিতে বলা হয় কেপালসার্সি, আরবিতে আস-সুক আল-মাসকুফ আর ইংরেজিতে গ্র্যান্ড বাজার। এটি সম্পদে যেমন ধনাঢ্য, তেমনি এর ইতিহাসের জেল্লাও কম নয়।

৩৬৫ দিন। পপৃথিবীর প্রথম শপিং মল বলা হয় গ্র্যান্ড বাজারকে। যাকে তুর্কিতে বলা হয় কেপালসার্সি, আরবিতে আস-সুক আল-মাসকুফ আর ইংরেজিতে গ্র্যান্ড বাজার। এটি সম্পদে যেমন ধনাঢ্য, তেমনি এর ইতিহাসের জেল্লাও কম নয়। ১৪৫৫ সালের শীতে যখন এর প্রথম ইটটি গাঁথা হচ্ছে ততদিনে সদ্য রোমানদের পতন ঘটেছে। কনস্ট্যান্টিনোপলের মসনদে বসেছেন ইতিহাসের বিস্ময়পুরুষ মুহাম্মাদ আল ফাতিহ (মেহমেত দ্য কনকোয়ারার)। তার হাতেই এই বাজারের প্রতিষ্ঠা। শুরুতে প্রধানত কাপড় আর অলংকার ব্যবসায়ীদের জন্য প্রতিষ্ঠিত এই বাজারের খ্যাতি বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগেনি। মাত্র দুটি পেশার মানুষদের জন্য প্রতিষ্ঠিত এই বাজারের প্রাক্তন নাম ছিল বেদেস্তান; কাপড়ের বাজার। সুলাইমান আল কানুনীর সময় এর পাশাপাশি আরেকটি বাজার নির্মিত হলো, যার নাম সান্দাল বেদেস্তান। অধুনা এই দুটি বাজারের সমন্বয়েই বিশ্বব্যাপী এর পরিচিতি গ্র্যান্ড বাজার নামে। এই বাজারের আরবি নামটির মধ্যে এর পরিচয়ের একটি বড় উপাদান লুকিয়ে আছে। আরবিতে একে ডাকা হয় আস-সুক আল-মাসকুফ বলে, যার অর্থ হচ্ছে ছাদওয়ালা বাজার। হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন, পৃথিবীর আর সব বাজারের থেকে বিরল ব্যতিক্রম এই বাজার সম্পূর্ণ ছাদে ঢাকা। শুরুর দিকে যা ছিল কাঠের, উপর্যুপরি আগুন লাগার প্রবণতা থেকে পরে এর ছাদকে ঢেকে দেয়া হয়েছে টাইলস দ্বারা। প্রায় পৌনে ছয় শতাব্দীর কালের দাগ লেগে রয়েছে যে স্থাপনায় তার প্রতি আকর্ষণ হওয়াটাই স্বাভাবিক। ইট আর পাথরে নির্মিত এই স্থাপনা দেখতে গড়ে প্রতিদিন এখানে আসেন আড়াই থেকে চার লাখ দর্শনার্থী। গ্রীষ্ম ও বসন্তকালে যা বেড়ে দাঁড়ায় পাঁচ লাখ পর্যন্ত। এই বিপুল কর্মযজ্ঞ সামাল দিতে আছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও পুলিশ। তা ছাড়াও এমনিতে এর নিরাপত্তা ব্যবস্থা চমৎকার। স্বচ্ছন্দে চলাচলের জন্য আছে ৬৪টি রাস্তা।

HOT FOOD

হ্যামসিলি পিলাভ

৩৬৫ দিন। দহ্যামসিলি পিলাভ ওভেন-বেকড পিলাফ দিয়ে একটি তুর্কি খাবার। যা অ্যাঙ্কোভিসে আবদ্ধ থাকে। অর্থাৎ মাছ দিয়ে তৈরি একটি স্তরে। পিলাফ সাধারণত লম্বা দানার চাল, পেঁয়াজ, কিশমিশ, পাইন বাদাম, পুদিনা, লেবুর রস এবং মশলা দিয়ে প্রস্তুত করা হয়। হ্যামসিলি পিলাভ প্রস্তুত করার জন্য, একটি বেকিং ডিশ প্রথমে মাখন দিয়ে ব্রাশ করা হয়, তারপর অ্যাঙ্কোভি দিয়ে স্তরিত করা হয় যাতে পুরো বাটিটির আকার নিতে পারে । চালের পিলাফটি অ্যাঙ্কোভিসের উপরে স্থাপন করা হয় এবং অ্যাঙ্কোভিসের শেষগুলি বাটির কেন্দ্রের দিকে ভাঁজ করা হয় যাতে চালটি সম্পূর্ণরূপে আবদ্ধ থাকে। বেকিং প্রক্রিয়ার পরে, খাবার বেকিং বোল থেকে সাধারণত উল্টে দেওয়া হয় এবং ডিল স্প্রিগ এবং লেবুর টুকরো দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করা হয়। এটি মূলত পাওয়া যায় তুর্কির বিভিন্ন অঞ্চলে তার মধ্যে অন্যতম এবং বিখ্যাত রেস্টুরেন্ট হল হ্যাভোরে । যা ইস্তাম্বুলে অবস্থিত। প্রতিদিন এই রেস্তোর শুধু এই খাবারটি খাওয়ার লাঞ্চ টাইমে ভিড় হয় চোখে পড়ার মতো। এছাড়াও ডিনারে টেক অ্যাওয়ের জন্য ভিড় হয়। তবে যেহেতু এটি মাছ দিয়ে তৈরি উপরের স্তরটি সে কারণে তুর্কির কিছু সংখ্যক মানুষ এড়িয়ে চলেন।

Scroll to Top